উত্তরপ্রদেশ: দাদুর জন্য ট্যুইটারে অক্সিজেন চেয়ে আবেদন - FIR দায়ের পুলিশের

আমেঠির সুপারিনটেনডেন্ট অফ পুলিশ দীনেশ সিং জানান - “ ভয়ের পরিবেশ তৈরি করতে এই ধরনের পোস্ট করা হচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে। যারা এই ধরণের মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”
উত্তরপ্রদেশ: দাদুর জন্য ট্যুইটারে অক্সিজেন চেয়ে আবেদন - FIR দায়ের পুলিশের
মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথফাইল ছবি সংগৃহীত

ট্যুইট করে অক্সিজেনের খোঁজ করেছিলেন অমেঠির শশাঙ্ক যাদব। তাঁর পিতামহ মরণাপন্ন - তাই অক্সিজেন দরকার। তাঁর ট্যুইট রিট্যুইট করেন অনেকেই। দ্য ওয়ারের সাংবাদিক আরফা শেরওয়ানি সেটি রিট্যুইট করতেই মুহূর্তে তা ভাইরাল হয়ে যায়। তবে কেউই করোনা আক্রান্ত হওয়ার জন্যই অক্সিজেন প্রয়োজন, সেরকম কিছু উল্লেখ করেননি।

ইতিমধ্যেই আমেঠির সাংসদ স্মৃতি ইরানি শশাঙ্কের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেন। কিন্তু যোগাযোগ করে উঠতে পারেনি। জেলাশাসক ও দায়িত্বপ্রাপ্ত মেডিক্যাল অফিসারকে বিষয়টিতে নজর দিতে বলেন। কিছুক্ষণ পরে শশাঙ্ক যাদব স্মৃতি ইরানিকে ধন্যবাদ জানিয়ে ট্যুইট করে জানান - তাঁর পিতামহ মারা গিয়েছেন। এখানেই ব্যাপারটা থেমে যেতে পারতো। কিন্তু তা হয়নি।

আমেঠির পুলিশ শশাঙ্ক যাদবের ট্যুইটকে “দায়িত্বজ্ঞানহীন” উল্লেখ করেছে। আমেঠির সুপারিনটেনডেন্ট অফ পুলিশ দীনেশ সিং জানান - “ ভয়ের পরিবেশ তৈরি করতে এই ধরনের পোস্ট করা হচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে। যারা এই ধরণের মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

তিনি আরও বলেন - “ আমরা তদন্ত করে দেখেছি শশাঙ্কের পিতামহ হার্ট অ্যাটাকে মারা গিয়েছেন। করোনা আক্রান্ত ছিলেন না তিনি। সুতরাং অক্সিজেনের প্রয়োজন থাকতে পারে না।” অবশেষে রামগঞ্জ থানায় শশাঙ্ক যাদবের বিরুদ্ধে FIR দায়ের করা হয়। ভারতীয় দন্ডবিধির ২৬৯, ১৮৮, ৫০০ এ, বি ধারায় মামলা করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, উত্তরপ্রদেশে অক্সিজেনের অভাবে করোনা আক্রান্তদের মৃত্যুর খবর অস্বীকার করেছেন যোগী আদিত্যনাথ। তিনি বলেন - “ উত্তরপ্রদেশের কোথাও অক্সিজেনের অভাব নেই। কিছু কিছু জায়গায় অক্সিজেন কালোবাজারি হওয়ায় কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। খুব শিগগিরই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” শুধু তাই নয় - যারা অক্সিজেন নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে, তাদের সম্পত্তিও বাজেয়াপ্ত করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in