কেন্দ্রের হস্তক্ষেপে সরকারকে 'তফাৎ যাও' বলা কৃষক আন্দোলনের গান সরাল ইউটিউব

গানটি সরিয়ে দেওয়ার কথা শুনে এক কৃষক নেতা বলেছেন, 'ওরা হয়তো ইউটিউব থেকে গানটি সরিয়ে দিতে পারবে। আমাদের মন থেকে মুছে দিতে পারবে না।'
কেন্দ্রের হস্তক্ষেপে সরকারকে 'তফাৎ যাও' বলা  কৃষক আন্দোলনের গান সরাল ইউটিউব

সরকার ও সরকারপন্থীদের 'তফাৎ যাও' বলেছিল কৃষকদের গান 'এয়লান'। রবিবার সেই গান ইউটিউব থেকে সরিয়ে দেওয়া হল। কৃষি আন্দোলনের প্রেক্ষিতে কিছু ব্যবহারকারীর টুইটার অ্যাকাউন্ট সরিয়ে দেওয়ার ঘটনার পরই এই পদক্ষেপ। আর এ বারও ভিডিও মুছে ফেলার নেপথ্যে কেন্দ্রের অভিযোগ। এমনকী আইনি পদক্ষেপও করা হল। কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে পঞ্জাবি গায়ক কানওয়ার গ্রেওয়ালের গান 'এয়লান' এবং জনপ্রিয় সঙ্গীতকার হিম্মত সাঁধুর গান 'আসি বাড়েঙ্গে' ৪ মাস আগে মুক্তি পেয়েছিল ইউটিউবে।

গান দু’টি গাজিপুর, সিঙ্ঘু সীমান্তে আন্দোলনকারী কৃষকদের কণ্ঠে শোনা গিয়েছে বারবার। কৃষক আন্দোলনে আন্দোলনগীতি হয়ে উঠেছিল 'এয়লান'। কারণ এ গানের ছত্রে ছত্রে উঠে এসেছে কৃষকদের প্রতি সরকারের নিষ্ঠুরতার কথা। গানে ‘এয়লান’ অর্থাৎ হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে সরকারপন্থীদের উদ্দেশে। বলা হয়েছে, ফসলের খেতে ঢুকতে যেও না। সেখানে শুধুমাত্র কৃষকদের অধিকার। ফসলের বিচারের অধিকার শুধু কৃষকদের। আর কারও না।

ইউটিউবেও গানটি দেখা হয়েছে ১ কোটিবারের বেশি। মুছে ফেলার আগে গানটির ইউটিউব ভিউ ছিল ১.৩ কোটি। সোমবার দু’টি গানই সরিয়ে দিয়েছে ইউটিউব। গানটি সরিয়ে দেওয়ার কথা শুনে এক কৃষক নেতা বলেছেন, 'ওরা হয়তো ইউটিউব থেকে গানটি সরিয়ে দিতে পারবে। আমাদের মন থেকে মুছে দিতে পারবে না।'

২০২০ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে ভারতের বহু সেলিব্রিটি কৃষক আন্দোলনের পাশে দাঁড়িয়েছেন। বহু সংগীতশিল্পী কৃষকদের সমর্থনে নিজেদের গান প্রকাশ করেছেন। এইসব গান, ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছিল। আন্দোলনস্থলেও তা বাজতে শুরু করেছিল। কিন্তু কেন্দ্রের হস্তক্ষেপে তা তুলে নিয়েছে ইউটিউব। যদিও এর পিছনে কী কারণ রয়েছে, তা নিয়ে ইউটিউবের তরফে বিবৃতি জারি করে কিছুই জানানো হয়নি।

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in