বারুইপুর অগ্নিকান্ডে সিপিআইএম বিধায়ক সুজন চক্রবর্তীকে হেনস্থা করার অভিযোগ উঠলো তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থলে গিয়ে সংবাদমাধ‍্যমের সামনে এই অগ্নিকাণ্ডের জন্য সরাসরি প্রোমোটার চক্রকে দায়ী করেছিলেন সুজন চক্রবর্তী। এরপরই স্থানীয় তৃণমূল নেতা তথা বারুইপুর পুরসভার বিদায়ী উপ পুরপ্রধান গৌতম দাসের সাথে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন তিনি। বাম বিধায়ককে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়ারও অভিযোগ ওঠে তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে।

গতকাল রাত ২ টা নাগাদ বারুইপুরের কাছারি বাজারের কাপড় পট্টিতে ভয়াবহ আগুন লাগে। ভস্মীভূত হয়ে যায় শতাধিক দোকান। দীর্ঘক্ষণের প্রচেষ্টায় দমকলের ১১টি ইঞ্জিন আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। কয়েক কোটি টাকা ক্ষয়কতির আশঙ্কা করছেন ব‍্যবসায়ীরা।

আজ সকালে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন‌ যাদবপুরের বিধায়ক সুজন চক্রবর্তী। সংবাদমাধ্যমের সামনে এই ঘটনার জন্য প্রোমোটার চক্রের দিকে আঙুল তোলেন তিনি। ব‍্যবসায়ীদের অনেকেও এই অভিযোগ তুলেছেন। কিন্তু সুজন চক্রবর্তী এই অভিযোগ তোলার পরই তাঁর দিকে মারমুখী হয়ে তেড়ে আসেন তৃণমূল নেতা গৌতম দাস।

বাম পরিষদীয় দলনেতার ওপর হামলার ঘটনা জানাজানি হতেই নবান্ন থেকে ফোন করে খোঁজ নেওয়া হয় সুজন চক্রবর্তীর। তাঁর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে স্থানীয় বিধায়ক তথা বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ‍্যোপাধ‍্যায়কে।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন