সুপার সাইক্লোন আমফান তান্ডব চালিয়ে যাবার পর আট দিন কেটে গেলেও দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগর থানার বিস্তীর্ণ অংশ এখনও অন্ধকারে। আমফানের দিন থেকে এখনও পর্যন্ত বিদ্যুতের দেখা নেই। যত্রতত্র ইলেকট্রিক পোস্ট ভেঙে পড়ে আছে। রাস্তার উপর ভাঙা গাছের সংখ্যা অসংখ্য। ইলেকট্রিক পোস্ট মেরামতির কাজ আপাতত চোখে পড়ছে না এলাকাবাসীর। তবে কোথাও কোথাও গাছ সরানোর কাজ শুরু হয়েছে - তাও বেছে বেছে কিছু এলাকায়। যা নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ বাড়ছে ক্রমশ।

এই মুহূর্তে চড়া দামে জেনারেটর ভাড়া করা ছাড়া এলাকাবাসীর সামনে আর কোনো বিকল্প নেই। কেউ ঘন্টায় ২০০ টাকা তো কেউ ঘন্টায় ৩০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া দিতে বাধ্য হচ্ছেন। লকডাউনে মানুষের হাতে টাকা প্রায় ফুরিয়ে আসছে – অথচ এই সময়েই জেনারেটর ভাড়ার জন্য গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা।

 

আপাতত কবে বিদ্যুতের দেখা মিলবে তারও কোনো নিশ্চয়তা নেই। স্থানীয় প্রশাসন কিংবা বিদ্যুৎ অফিসের তরফ থেকে তেমন কোনো আশ্বাস মেলেনি এখনও পর্যন্ত। বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকার কারণে পানীয় জল নিয়েও ভয়াবহ সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

গত বুধবার ২০ মে ভয়াবহ সুপার সাইক্লোন আমফান তান্ডব চালায় রাজ্যের বিস্তীর্ণ অংশে। সুপার সাইক্লোনের তান্ডবে তছনছ হয়ে যায় দক্ষিণ ২৪ পরগণা, উত্তর ২৪ পরগণা, কলকাতা, পূর্ব মেদিনীপুর, হাওড়া সহ রাজ্যের বেশ কয়েকটি জেলা। আমফান ঝড়ে রাজ্যে মৃত্যু হয় ৮০ জনের। এঁদের মধ্যে বিভিন্ন জেলায় মৃত্যু হয়েছে ৬১ জনের এবং কলকাতায় ১৯ জনের।

 


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন