মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভায় 'জয় শ্রীরাম' স্লোগান শুনতে চেয়েছিলেন, সেটাই হয়েছে: অধীর

অধীর বলেন, মুখ্যমন্ত্রী তাঁর সরকার, তাঁর দলকে ব্যবহার করে, বলপ্রয়োগ করে বাম-কংগ্রেসকে শূন্য আসনে নামিয়েছে‌। এতে সবথেকে বেশি লাভবান হয়েছে বিজেপি।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভায় 'জয় শ্রীরাম' স্লোগান শুনতে চেয়েছিলেন, সেটাই হয়েছে: অধীর
অধীর চৌধুরী এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফাইল চিত্র

উপনির্বাচনে জয়ী তৃণমূল বিধায়কের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার বিধানসভায় ছিলেন না বিজেপির বিধায়করা। আর তা নিয়ে কটাক্ষ করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে বলেন, উনি তো এরকমটাই চেয়েছিলেন। যেখানে বন্দেমাতরাম, ইনকিলাব জিন্দাবাদের পরিবর্তে শুধু জয় শ্রীরাম স্লোগান শোনা যাবে।

এদিন মমতা অভিযোগ করেছেন, বিধানসভায় বিরোধীরা বিরোধীদের মতো আচরণ করছে না। এই প্রসঙ্গে অধীর রঞ্জন চৌধুরীর বক্তব্য, বিধানসভায় থাকবে কী থাকবে না, তা বিজেপির নিজস্ব সিদ্ধান্ত। আমরা প্রথম থেকেই বলে আসছিলাম, মুখ্যমন্ত্রী তাঁর সরকার, তাঁর দলকে ব্যবহার করে, বলপ্রয়োগ করে বাম-কংগ্রেসকে শূন্য আসনে নামিয়েছে‌। এতে সবথেকে বেশি লাভবান হয়েছে বিজেপি।

তৃণমূল ও বিজেপিকে আক্রমণ করে অধীর আরও বলেন, কংগ্রেস ও বামেরা যুগ যুগ ধরে পরিষদীয় রাজনীতিতে দক্ষ। বিধানসভা বয়কট করতে হলে প্রতিবাদ করতে হবে। শুধু তাই নয়, সেই প্রতিবাদের কারণ ও সাধারণ মানুষের সমর্থন থাকতে হয়।

একইসঙ্গে তৃণমূল সরকারের সমালোচনা করে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি জানান, 'রাজ্যে শিল্পোন্নয়নের সব সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু সরকারের কোনও মিশন নেই। রাজ্যে একের পর এক বিজনেস সামিট হয়েছে। কিন্তু সেই সব শিল্প গেল কোথায়।’‌ তিনি আরও বলেন - 'রাজ্যে এখন একটাই শিল্প। পরিযায়ী শিল্প। বাইরে লোককে পাঠিয়ে দাও। আর টাকা নিয়ে এস।'

প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রীর আবেদনে সাড়া দিয়ে রাজ্যে বিনিয়োগ টানতে বিদেশ যাত্রায় সম্মতি দেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। অধীর রঞ্জন চৌধুরীর কথায়, ‘‌এবার হয়ত রাজ্যপালের পদ ছেড়ে তৃণমূলের প্রতিনিধিত্ব করবেন ধনখড়।’‌

অধীর চৌধুরী এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
মমতার সঙ্গে RSS-র সম্পর্ক আছে, মমতার আমলেই রাজ্যে RSS-র শাখা বেড়েছে - অধীর

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in