উপনির্বাচনে উল্লেখযোগ্য হারে ভোট কমেছে বিজেপির, ভোট বেড়েছে CPIM-র, আশাবাদী আলিমুদ্দিন

শুধু সিপিএমের ভোটের হিসেব ধরলে তারা পেয়েছে প্রায় ১৫ শতাংশ। শান্তিপুরে বামেরা পেয়েছে ২০ শতাংশ ভোট। এক্ষেত্রে দলের গড় পারফরম্যান্স উন্নত হয়েছে।
উপনির্বাচনে উল্লেখযোগ্য হারে ভোট কমেছে বিজেপির, ভোট বেড়েছে CPIM-র, আশাবাদী আলিমুদ্দিন
ছবি প্রতীকী সংগৃহীত

গত বিধানসভা নির্বাচনে একটিও আসন পায়নি বামেরা। তৃতীয় শক্তি হিসেবে রাজ্যে সংযুক্ত মোর্চা একটি আসন পায়। আবার অন্যদিকে উপনির্বাচনগুলিতে বিজেপি তাদের প্রাপ্ত আসনে হেরেছে। এই পরিস্থিতিতে সিপিএমের লক্ষ্য বিজেপির সঙ্গে ব্যবধান কমানো। মে মাসে ভোটের ফলাফল প্রকাশের পর ৩০ অক্টোবর কেন্দ্রের উপনির্বাচনের বামেদের প্রাপ্তি শান্তিপুর বিধানসভা কেন্দ্রে ভোট বৃদ্ধি।

উপনির্বাচনে চার কেন্দ্রে বামফ্রন্ট পেয়েছে প্রায় ৮.৫ শতাংশ ভোট। গত বিধানসভা নির্বাচনের হিসেবে তুলনা করলে প্রায় দ্বিগুণ। আবার শুধু সিপিএমের ভোটের হিসেব ধরলে তারা পেয়েছে প্রায় ১৫ শতাংশ। শান্তিপুরে বামেরা পেয়েছে ২০ শতাংশ ভোট। এক্ষেত্রে দলের গড় পারফরম্যান্স উন্নত হয়েছে। যদিও ফের মুখ পুড়েছে দিনহাটা ও গোসাবায় দুই বাম শরিক দল ফরওয়ার্ড ব্লক এবং আরএসপির।

তৃণমূলের ভোট বেড়েছে এক লক্ষ ৭০ হাজার ৬৮১। বিজেপির ভোট কমেছে ২ লক্ষ ৫৮ হাজার ২৬০। আবার বাম বা সিপিএমের ভোট বেড়েছে ২৭ হাজার ২৯৬। শান্তিপুরে এই ভোটবৃদ্ধির জেরে বিজেপির ভোট কমে যাওয়াকেই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন বাম নেতৃত্ব। রাজনৈতিক শিবিরের মতে, রামে চলে যাওয়া ভোট আবার বামে ফিরতে পারে। শান্তিপুর থেকে সেই ইঙ্গিত নিয়েই নতুন করে গুছিয়ে নিতে চাইছে বামেরা।

শান্তিপুর ও খড়দহের উপনির্বাচনে বামেদের ভোটব্যাঙ্কর চিত্র কিছুটা আলাদা। শান্তিপুরে বামেদের ভোট বেড়েছে, খড়দহে কিছুটা কমেছে। এদিকে উল্লেখযোগ্যভাবে ভোট কমেছে বিজেপির। গেরুয়া শিবিরের এই শক্তিক্ষয় নিজেদের পক্ষে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী লাল ব্রিগেড।

সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তীর মন্তব্য, ‘বিজেপির ফানুস ফাটতে শুরু করেছে। আমরা কীভাবে মানুষের বিশ্বাসের যোগ্য হয়ে উঠতে পারব, সেটা এবার ভাবতে হবে। বিজেপি এখনও দ্বিতীয় আছে, সেটা আরও নামবে।' কিছু জায়গায় নিজেদের অবস্থান ধরে রাখার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি। শান্তিপুরের সিপিএম প্রার্থী সৌমেন মাহাতো বলছেন, ‘এই ফল কর্মীদের মনোবল বাড়াবে। এই ফল থেকে আগামী দিনে লড়াইয়ের রসদ মিলবে।'

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in