মমতার অতি সক্রিয়তায় অসন্তুষ্ট বিরোধী জোটের অন্য দলগুলি, কংগ্রেসের পাশে থাকার বার্তা

এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূমিকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তৃণমূল সুপ্রিমোর ইউপিএ নেই তত্ত্বে ক্ষুব্ধ হওয়ার কথা তিনি সরাসরি সোনিয়া গান্ধীকে জানান।
মমতার অতি সক্রিয়তায় অসন্তুষ্ট বিরোধী জোটের অন্য দলগুলি, কংগ্রেসের পাশে থাকার বার্তা
গ্রাফিক্স - নিজস্ব

গত কয়েক মাস ধরে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেকে বিজেপি বিরোধী জোটের প্রধান মুখ হিসাবে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এই বিরোধী জোটের অন্যতম রাজনৈতিক দল কংগ্রেস। তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে কোনও দ্বন্দ্ব নেই। কিন্তু মমতা তা কোনওভাবেই স্বীকার করতে চাননি। বরং একের পর এক বক্তব্যে কংগ্রেসের বিরোধিতা করে গিয়েছেন। কংগ্রেসের অস্তিত্বকে অস্বীকার করেছেন। ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর বিভিন্ন রাজ্য থেকে কংগ্রেস ভাঙানোর পথ অবলম্বন করেছেন। মেঘালয়, ত্রিপুরা, গোয়ায় নিজেদের প্রধান বিরোধী দল বলে দাবি করে দল ভাঙানোর চেষ্টা চালিয়ে গিয়েছে।

কিন্তু তাঁর এইঅতি সক্রিয়তা অন্যরা ভালোভাবে নেননি। দিল্লি সফরের সময় সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন কিনা। মমতার জবাব ছিল, দিল্লি এলে সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে দেখা করতেই হবে, এমন কথা সংবিধানে লেখা আছে নাকি! শীতকালীন অধিবেশনে কংগ্রেসের মল্লিকার্জুন খাগড়ের ডাকা বৈঠকে যোগ দিতে তিনি অস্বীকার করেন। তারপর মুম্বই গিয়ে ইউপিএ নেই বলে দাবি করা-এসব কিছুর জেরে বিরোধী জোটের অন্য দল মনে করছে জোটের শক্তিক্ষয় করার জন্যই মমতাকে মাঠে নামানো হয়েছে।

শিবসেনার সঙ্গে বৈঠকের পরই মমতা সম্পর্কে সমালোচনা করা হয় মুখপত্র সামনায়। বলা হয়, কংগ্রেস বা ইউপিএকে বাদ দিয়ে সমান্তরাল বিরোধী জোট গঠন করার অর্থ ফ্যাসিস্ট বিজেপিকে শক্তিশালী করা। যারা বিজেপির বিরুদ্ধে লড়তে চাইলেও চাইছে কংগ্রেস বিলুপ্ত হয়ে যাক, তারাই বড় বিপদ। বিজেপির কংগ্রেস বিরোধিতা তাদের রাজনৈতিক কর্মসূচির অঙ্গ। কিন্তু বিরোধী জোটের কংগ্রেস বিরোধিতা, মোটেই সুবিধার নয়।

এদিকে শিবসেনা নেতা ও মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে ফোনে দীর্ঘ আলোচনা সারেন। আবার গত মঙ্গলবার সোনিয়া গান্ধী যে বৈঠক ডেকেছিলেন, তাতে তৃণমূলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। কিন্তু উপস্থিত ছিল অনেক বিরোধী দলই। আবার এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূমিকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তৃণমূল সুপ্রিমোর ইউপিএ নেই তত্ত্বে ক্ষুব্ধ হওয়ার কথা তিনি সরাসরি সোনিয়া গান্ধীকে জানান। রাজনৈতিক মহল মনে করছে, মমতা কংগ্রেস বিরোধী তৎপরতা বাকিদের একত্রিত করতে সাহায্য করেছে।

মমতার অতি সক্রিয়তায় অসন্তুষ্ট বিরোধী জোটের অন্য দলগুলি, কংগ্রেসের পাশে থাকার বার্তা
তৃণমূলের সঙ্গে কোনও জোট নয়, কংগ্রেসের ক্ষতি করতেই গোয়া এসেছে তৃণমূল: কংগ্রেস

GOOGLE NEWS-এ আমাদের ফলো করুন

Related Stories

No stories found.
People's Reporter
www.peoplesreporter.in