‘জাতীয় সম্পদের এই লুট বন্ধ হোক। আগামী ২৬-২৭ নভেম্বর দেশজুড়ে বিক্ষোভে শামিল হোন।’ বিএসএনএল-কে ২-জি সার্ভিস বন্ধ করার কেন্দ্রীয় সরকারি নির্দেশের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে একথা জানালেন সিপিআই(এম) সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। রবিবার সকালে এক ট্যুইট বার্তায় ইয়েচুরি বলেন – বিএসএনএল-কে ২-জি সার্ভিস বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া আসলে ঠান্ডা মাথায় এক ব্লু চিপ সংস্থাকে খুন করার এবং এই সংস্থার বিপুল সম্পদ মোদীর পছন্দের বন্ধুদের হাতে তুলে দেবার চেষ্টা।

 

এদিনের ট্যুইটের সঙ্গে ন্যাশনাল হেরাল্ডের এক প্রতিবেদনও পোস্ট করেছেন ইয়েচুরি। যে প্রতিবেদন অনুসারে মোদী সরকার বিএসএনএল-কে ২-জি সার্ভিস বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে। সূত্র অনুসারে যখন বিএসএনএল কর্মীরা প্রাণপণে সংস্থাকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন, ৪-জি সার্ভিস শুরু করার চেষ্টা করছেন, তখনই এই ধরণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএসএনএল-এর এক আধিকারিক জানিয়েছেন ২-জি সার্ভিস বন্ধ করে দেওয়া হলে তা হবে বিএসএনএল-এর কফিনে শেষ পেরেক। কারণ বিএসএনএল-এর ৬০ শতাংশ মোবাইল থেকে আয় হয় এই ২-জির মাধ্যমে। যদিও অন্য এক সূত্র অনুসারে, ২-জি সার্ভিস বন্ধ নয়, এই সার্ভিসে নতুন আর কোনো বিনিয়োগ করতে বারণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই বিএসএনএল ম্যানেজমেন্ট এবং সমস্ত ট্রেড ইউনিয়ন এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছে। বিএসএনএল এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক পি অভিমন্যু জানিয়েছেন ৪জি সার্ভিসের জন্য বিএসএনএল-এর প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম কেনার সিদ্ধান্তে কেন্দ্রীয় সরকার ধীরে চলার নীতি নিয়েছে। ৪জি সার্ভিস চালু করা হলে বিএসএনএল-এর পুনরুজ্জীবন সম্ভব নয়।    


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন