আরজেডি-র প্রবল চাপের মুখে শপথ নেবার মাত্র তিনদিনের মধ্যে দুর্নীতির অভিযোগে নীতিশকুমার মন্ত্রীসভা থেকে পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী মেওয়ালাল চৌধুরী। এবার খোদ তেজস্বী যাদবের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে সুর চড়ালো জেডি(ইউ)। দলের দাবী দুর্নীতির অভিযোগ থাকায় তেজস্বী যাদব বিরোধী দলনেতা হতে পারবেন না। উল্লেখ্য বিহার বিধানসভা নির্বাচনে বিরোধী মহাজোটের একক বৃহত্তম দল আরজেডি তেজস্বী যাদবের বিরোধী দলনেতা হবার কথা।

শনিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে জেডিইউ সভাপতি বশিষ্ঠ নারায়ণ সিং জানিয়েছেন – মেওয়ালাল চৌধুরীকে নিয়ে যেভাবে তেজস্বী যাদব নীতিশ কুমারকে আক্রমণ করেছেন তা নিন্দনীয়। এই প্রসঙ্গে তিনি আরও জানান – তেজস্বী যাদবের বিরুদ্ধে ভারতীয় দন্ডবিধির একাধিক ধারায় অভিযোগ আছে। এমনকি এসসি/এসটি আইনেও তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। এই বিষয়ে আমরা অবিলম্বে বিচারপ্রক্রিয়া শুরু করার আবেদন জানাচ্ছি। কারণ শাসক দলের বিধায়ক হওয়া সত্ত্বেও সরকারের পক্ষ থেকে মেওয়ালাল চৌধুরীর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জেডিইউ-এর আরও অভিযোগ, বিগত বিহার বিধানসভা নির্বাচনে রাঘোপুর কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন পত্র দাখিল করার সময় তেজস্বী যাদব তাঁর বিরুদ্ধে থাকা একাধিক মামলার কথা গোপন করেছেন। যে বিষয়ে অবিলম্বে নির্বাচন কমিশনের ব্যবস্থা নেওয়া উচিৎ।

প্রসঙ্গত সাম্প্রতিক বিহার বিধানসভা নির্বাচনে এনডিএ জোট জয়ী হয়েছে ১২৫ আসনে। যার মধ্যে বিজেপি পেয়েছে ৭৪ আসন। জেডিইউ ৪৩ আসন। অন্যদিকে বিরোধী মহাজোট পেয়েছে ১১০ আসন। যার মধ্যে আরজেডি একক ভাবে পেয়েছে ৭৫ আসন। এবারের বিহার বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল অনুযায়ী বিহার বিধানসভায় আরজেডিই একক বৃহত্তম দল।   


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন