গত ৯ জুলাই দুপুর ১২.১০ মিনিটে করা ট্যুইটে কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর অভিনন্দন জানিয়েছিলেন ‘উৎকর্ষ’র শিরোপা পাওয়া দেশের তিনটি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে। যে বার্তায় স্পষ্ট লেখা ছিলো – উৎকর্ষের শিরোপা পাবার জন্য অভিনন্দন মণিপাল বিশ্ববিদ্যালয়, বিটস ইন্ডিয়া এবং জিও ইন্সটিটিউট। এর সঙ্গে ছিলো সরকারের চার বছরের অগ্রগতির প্রশস্তি।

 

যদিও বৃহস্পতিবার রাজ্যসভায় দাঁড়িয়ে কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী জানালেন – জিও ইন্সটিটিউটকে উৎকর্ষের শিরোপা দেওয়া হয়নি। উৎকর্ষের শিরোপার জন্য জিও ইন্সটিটিউটের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে মাত্র।

এদিন প্রকাশ জাভড়েকর রাজ্যসভায় জানিয়েছেন – একটি কমিটি পর্যবেক্ষণের পর এই নির্বাচন করেছে। জিও ইন্সটিটিউটকে উৎকর্ষের শিরোপা দেওয়া হয়নি। বিড়লা ইন্সটিটিউট অফ টেকনোলজিক্যাল সায়েন্স, মণিপাল আকাদেমী অফ হায়ার এডুকেশন এবং জিও ইন্সটিটিউট-এর নাম উৎকর্ষের শিরোপার জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে।

এদিন সংসদের উচ্চকক্ষে প্রশ্নোত্তর পর্বে সিপিআই সাংসদ ডি রাজা জানতে চান – দেশের সেরা প্রতিষ্ঠানের তালিকায় আই আই টি চেন্নাই, জে এন ইউ-এর মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নেই কেন? একই সঙ্গে অন্যান্য দলের সাংসদরাও এই পদ্ধতিতে স্বচ্ছতার অভাব আছে বলে অভিযোগ করেন। সিপিআই সাংসদের প্রশ্নের উত্তরে একথা জানান কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী।

এর আগে নির্বাচন কমিটির সদস্য গোপালাস্বামী জানিয়েছিলেন, উৎকর্ষ প্রতিষ্ঠান নির্বাচনের জন্য যে যোগ্যতা বলা হয়েছিল, এই ৬ টি ইন্সটিটিউট ছাড়া আর কোনো ইন্সটিটিউটই তা পূরণ করতে পারেনি। দেশের মোট  ১১৪ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এই মর্যাদার জন্য আবেদন জানিয়েছিল।

(প্রকাশ জাভড়েকর-এর অফিসিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে ট্যুইট সংগৃহীত)


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন