বিদ্যুতের মাশুল বৃদ্ধির প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটে বসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কেন্দ্র বারাণসীর তাঁতিরা। মিটার রিডিং নিয়ে যাওয়ার পরেও অত্যাধিক পরিমাণ বিদ্যুৎ বিল আসার প্রতিবাদে এই ধর্মঘট। তাঁদের অভিযোগ, ২০১৯ সাল থেকে একইরকম পরিস্থিতি চলছে।

এর আগে সেপ্টেম্বর মাসে যোগী আদিত্যনাথের আশ্বাসের পর ৫ দিনের ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন তাঁতিরা। বিদ্যুতের মাশুল ঠিক করে তাঁদের বকেয়া মিটিয়ে দেওয়া নিয়ে সমঝোতাও হয়েছিল তখন। কিন্তু এরপর দেড় মাস কেটে গেলেও যোগীর কোনও প্রতিশ্রুতিও পূরণ হয়নি। অবশেষে এই অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে।

বাজরদিহা, মদনপুরা, নাক্কি ঘাট, রিওরি তালাব এবং শাদুল্লা পুরা এলাকায় বাংকার মহাসভা এবং বারাণসীর বিরাদারানা টানজিম সংগঠনের তাঁতিরা জড়ো হবেন। এইসব এলাকায় আগে পাওয়ারলুম চালানোর আওয়াজ পাওয়া যেত। কিন্তু প্রতিবাদ আন্দোলনের কারণে তাঁতিরা কাজ বন্ধ রাখায় এই শব্দ পাওয়া যাচ্ছে না।

উত্তরপ্রদেশ উইভারস অ্যাসেসিয়েশন-এর সভাপতি ইফতিকার আহমেদ আনসারি জানিয়েছেন, 'আমাদের দাবি খুবই সাধারণ। একটি নির্দিষ্ট রেট ঠিক করে বিদ্যুৎ পরিষেবা দেওয়া হোক। যাতে আমাদের তাঁত ইউনিট চালাতে পারি। বিদ্যুৎ মাশুলের নতুন নিয়মের বিরোধিতা করেছি আমরা। কোভিড ১৯ পরিস্থিতির পর  আমাদের কাজ বন্ধ হয়ে গিয়েছে।

'তিনি আরও দাবি করেন, তাঁতিদের রাস্তায় বসতে বাধ্য করা হচ্ছে। সরকার যদি এখনই তাঁতিদের দাবি অনুসারে প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে না পারে তাহলে এই আন্দোলনের রেশ সারা রাজ্যে ছড়িয়ে পড়বে।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন