দেশজুড়ে করোনা মহামারীর মধ্যে ন‍্যাশানাল রুরাল এম্প্লয়মেন্ট গ‍্যারাটি স্কিমে (NREGS) মহিলাদের অংশীদারিত্ব উল্লেখ্যযোগ্য হারে কমেছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে NREGS প্রকল্পের মোট কর্মদিবসে মহিলাদের অংশীদারিত্ব কমে হয়েছে ৫২.৪৬ শতাংশ, গত আট বছরের মধ্যে যা সর্বনিম্ন। সম্প্রতি সরকার এই তথ্য প্রকাশ করেছে।

২৪ আগস্ট পর্যন্ত NREGS পোর্টালে পাওয়া তথ‍্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ২০১৩-১৪ সালে এই প্রকল্পে মহিলাদের অংশীদারিত্ব ছিল ৫২.৮২ শতাংশ। এর পর থেকে এই সংখ‍্যাটা ক্রমশ বেড়ে ২০১৬ সালে হয় ৫৬.১৬ শতাংশ। বর্তমানে যা কমে হয়েছে ৫২.৪৬ শতাংশ, গত বছরের তুলনায় ২.২৪ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে মহিলাদের অংশীদারিত্ব।

তথ‍্য অনুযায়ী, দেশে এই মুহূর্তে সক্রিয় NREGS কর্মীর সংখ্যা মোট ১৩.৩৪ কোটি। এর‌ মধ্যে মহিলার সংখ্যা প্রায় ৬.৫৮ কোটি অর্থাৎ ৪৯ শতাংশ। এছাড়া চলতি বছরে এই প্রকল্পে ২৮০.৭২ কোটি কর্মদিবসের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই ১৮৩ কোটিরও বেশি কর্মদিবস হয়ে গেছে, যা গ্রামীণ অর্থনীতিতে বড়সড় সঙ্কটের ইঙ্গিত।

মোট ১৮টি রাজ‍্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে NREGS-এর কাজে মহিলাদের অংশীদারিত্ব কমেছে।‌ সবথেকে খারাপ পরিস্থিতি অন্ধ্রপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ এবং তেলেঙ্গানায়। মহিলাদের অংশীদারিত্ব কমার জাতীয় গড় যেখানে ২.২৪ শতাংশ, সেখানে অন্ধ্রপ্রদেশে ৩.৫৮ শতাংশ,‌ পশ্চিমবঙ্গে ৩.৩২ শতাংশ ও তেলেঙ্গানাতে ২.৬২ শতাংশ। এছাড়াও হিমাচল প্রদেশ, ছত্তিশগড়, ঝাড়খণ্ড, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, মেঘালয়, তামিলনাড়ু, উত্তরাখণ্ড, সিকিম, বিহার, রাজস্থান, জম্মু ও কাশ্মীর, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে মহিলাদের অংশীদারিত্ব কমেছে।

আবার ১৪টি রাজ‍্যে NREGS প্রকল্পে উল্লেখযোগ্যভাবে মহিলাদের অংশীদারিত্ব বেড়েছে। এগুলো হলো- মিজোরাম, মধ্যপ্রদেশ, মণিপুর, গুজরাট, কেরালা, ওড়িশা, মহারাষ্ট্র, নাগাল্যান্ড, আসাম, কর্ণাটক, পুডুচেরি, গোয়া, অরুণাচল প্রদেশ এবং ত্রিপুরা।

চলতি বছরের পাঁচ মাসে এই প্রকল্পে সবথেকে বেশি মহিলা অংশ নিয়েছে কেরলে, ৯১.৩৮ শতাংশ। এরপরই রয়েছে পুদুচেরী (৮৭ শতাংশ), তামিলনাড়ু (৮৪.৮২ শতাংশ), গোয়া (৭৫.৭৫ শতাংশ), রাজস্থান (৬৫.৩৫ শতাংশ)।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন