গোহত‍্যার গুজবকে কেন্দ্র করে দু'বছর আগে উত্তরপ্রদেশের বুলন্দশহরে উগ্র হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের হাতে খুন হতে হয়েছিল ইন্সপেক্টর সুবোধ কুমার সিংকে। সেই ঘটনার মূল অভিযুক্ত শিখর আগরওয়ালের হাতে কেন্দ্র সরকারের প্রকল্প প্রচার সংগঠনের দায়িত্ব তুলে দিল জেলা বিজেপি। এক অনুষ্ঠানে শিখর আগরওয়ালকে প্রচার সংগঠনের "জেনারেল সেক্রেটারি" ঘোষণা করে তাঁর হাতে সার্টিফিকেট তুলে দিলেন বিজেপির জেলা সভাপতি অনিল সিসোদিয়া।

২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে স্থানীয় একটি মাঠে গোরুর মাংস‌ পড়ে থাকার গুজবকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল বুলন্দশহরের চিংড়াওয়াদি গ্রাম। খুন হয়েছিলেন ইন্সপেক্টর সুবোধ সিং ও ২২ বছরের এক যুবক সুমিত কুমার সিং। সেই ঘটনার মূল অভিযুক্ত শেখর আগরওয়াল ২০১৯ সালের আগস্ট মাসে জামিনে মুক্তি পান। 'ভারত মাতা কি জয়', 'জয় শ্রী রাম' ইত‍্যাদি শ্লোগান দিয়ে তাঁকে স্বাগত জানানো হয়েছিল‌ তখন।

গত ১৪ জুলাই "প্রধানমন্ত্রী জন কল্যাণকারী যোগী জাগ্রুকতা অভিযান" নামক একটি সংগঠনের আয়োজিত অনুষ্ঠানে ‌প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজেপি নেতা অনিল সিসোদিয়া। জানা গেছে এই সংগঠনটি সারাদেশে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রকল্পগুলি প্রচার করে এবং শীর্ষস্থানীয় বিজেপি নেতারা এই সংগঠনের পরামর্শদাতা হিসাবে রয়েছেন। অনুষ্ঠান মঞ্চেই শিখর আগরওয়ালকে এই সংগঠনের একজন 'সাধারণ সম্পাদক' হিসেবে ঘোষণা করে তাঁর হাতে একটি শংসাপত্র তুলে দেন তিনি।

এই শংসাপত্র তুলে দেওয়ার ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ব‍্যাপক ভাইরাল হওয়ার পরই দেশজুড়ে তীব্র বিতর্ক শুরু হয়েছে। সমালোচনার মুখে পড়ে অনিল সিসোদিয়া জানান, "এই সংগঠনের সাথে বিজেপির কোনো সম্পর্ক নেই। আমি কেবল প্রধান অতিথি হিসাবে ওখানে গিয়েছিলাম। এই জাতীয় সংগঠনগুলির উচিত সাধারণ মানুষের কাছে একটি পরিষ্কার ভাবমূর্তি বজায় রাখা।"

বিতর্কের মুখে এই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের পদ‌ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে শিখর আগরওয়ালকে। যদিও তিনি জানিয়েছেন, যে দায়িত্ব তাঁকে দেওয়া হয়েছিল নিষ্ঠার সাথে তা পালন করবেন তিনি।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন