পুরোহিতের পর এবার তিরুমালা মন্দিরের ‘জীয়াঙ্গার’ (এক ধর্মগুরু) জিয়ার স্বামী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তিরুমালার শ্রীভরি মন্দিরের শ্রী বৈষ্ণভ এবং বৈখানসা রীতি অনুসারে তিনি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে ছিলেন। শনিবারই তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সূত্রের খবর, ভাইরাস সংক্রমণের কারণে ধর্মগুরুর সামান্য উপসর্গ রয়েছে। তাঁর সবরকমের টেস্ট করা চলছে। শ্রী ভেঙ্কটেশ্বর ইনস্টিটিউট মেডিক্যাল সায়েন্সেসে আইসোলেশন ওয়ার্ডে তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে। ধর্মগুরুর করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়ার পরই মন্দির ট্রাস্টের স্বাস্থ্য কর্তৃ্পক্ষ জিয়ানগর মঠ চত্বর স্যানিটাইজ করে দিয়েছে। মঠের আরও কেউ আক্রান্ত কি না তা জানতে টেস্ট করা শুরু হয়েছে।

উল্লেখ্য, মন্দিরের এই ধর্মগুরুরা শ্রী রামানুজাচার্যের অধিকারী বংশধর, ভগবান ভেঙ্কটেশ্বরের সাধু-সুরকার এবং ভক্ত। রামানুজের বংশধরদের থিরুমালা তিরুপতি দেবস্থানম ট্রাষ্ট দ্বারা ঐতিহ্যের রক্ষক হিসাবে বিবেচনা করা হয়। মন্দিরের আচার অনুষ্ঠান, উৎসব এবং সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় অনুষ্ঠান অনুসরণে আগাম রীতি অনুসরণ করা হয়। টিটিডি মন্দিরগুলোর আগাম সংস্কৃতির রক্ষাকারী হিসাবে, জীয়াঙ্গারদেরকে ‘বেদ-আগম-শাস্ত্র-সংপ্রদায় এবং দিব্যপ্রবন্ধ’-এর নির্বিঘ্নে অনুগ্রহক হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

উল্লেখ্য, তিরুপ্তি মন্দিরে বর্তমানে প্রতিদিন ১২ হাজার মানুষকে দর্শনের অনুমতি দেওয়া হয়। এর আগে তিরুপতি মন্দিরে পুরোহিত, নিরাপত্তা রক্ষী, রান্নঘরের কর্মচারী সহ প্রায় ১৪০ জন করোনায় সংক্রমিত হন। যে ঘটনার পর সিটু প্রভাবিত কর্মচারী সংগঠন সাময়িক ভাবে মন্দিরে দর্শন বন্ধ করার দাবি জানায়। যদিও এই প্রসঙ্গে থিরুমালা তিরুপতি দেবস্থানম ট্রাষ্টের প্রধান ওয়াই ভি সুব্বা রেড্ডি জানান – মন্দিরে দর্শন বন্ধ করার কোনো প্রশ্নই নেই। পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আছে। তিনি আরও জানান, এটা সত্যি যে গত ১১ জুন মন্দির খোলার পর থেকে ট্রাষ্টের ১৪০ জন কর্মী কোভিড পজিটিভ ধরা পড়েছেন। এরমধ্যে নিরাপত্তা কর্মী, ট্রাষ্টের রান্নার দায়িত্বে থাকা কর্মীরা এবং পুরোহিতরা আছেন। এঁদের অর্ধেকের বেশি এখন সংক্রমণ কাটিয়ে উঠেছেন।   


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন