গত ছ'বছরে ব‍্যাঙ্ক অফ বরোদার নন-পারফর্মিং অ‍্যাসেট(এনপিএ)-এর পরিমাণ বাড়লো ছয় গুণেরও বেশি। অন্যদিকে ইন্ডিয়ান ব‍্যাঙ্কেরও গত ছ'বছরে এনপিএ-এর পরিমাণ বেড়েছে চারগুণ। সম্প্রতি এক আরটিআইয়ের উত্তরে একথা জানা গিয়েছে।

রাজস্থানের কোটার এক আরটিআই অ‍্যাক্টিভিস্ট সুজিত স্বামীর করা এক আরটিআইয়ের উত্তর থেকে জানা‌ গিয়েছে, ২০১৪ সালে‌‌র মার্চ মাসে ব‍্যাঙ্ক অফ বরোদার এনপিএ'র পরিমাণ ছিল ১১,৮৭৬ কোটি টাকা। ২০১৯ সালের‌ ডিসেম্বরের শেষে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৩,১৪০ কোটি টাকায়। ২০১৪ সালের ৩১ মার্চে ইন্ডিয়ান ব‍্যাঙ্কের এনপিএ'র পরিমাণ ছিল ৮,০৬৮.০৫ কোটি টাকা। ২০২০ সালের ৩১ মার্চে তা বেড়ে হয়েছে ৩২,৫৬১.২৬ কোটি টাকা।

নন-পারফর্মিং অ‍্যাসেটের পরিমাণ বাড়ার সাথে সাথে দুই ব‍্যাঙ্কেই এনপিএ অ‍্যাকাউন্টের সংখ্যাও বেড়েছে। ২০১৪ সালের ৩১ মার্চ ব‍্যাঙ্ক অফ বরোদায় এনপিএ অ‍্যাকাউন্টের সংখ্যা ছিল ২,০৮,০৩৫। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে তা ‌বেড়ে হয়েছে ৬,১৭,৩০৬।

২০২০ সালের ৩১ মার্চ ইন্ডিয়ান ব‍্যাঙ্কে এনপিএ অ‍্যাকাউন্টের সংখ্যা ৫,৬৪,৮১৬, ২০১৪ সালের ৩১ মার্চ এই সংখ্যা ছিল ২,৪৮,৯২১।‌

আরটিআইয়ের উত্তরে বলা হয়েছে, এসএমএস সার্ভিস পরিষেবা, মিনিমাম ব‍্যালেন্স চার্জ, লকার চার্জ, ডেবিট-ক্রেডিট কার্ড পরিষেবা চার্জ, ইনওয়ার্ড-আউটওয়ার্ড চার্জ ইত‍্যাদি থেকে প্রচুর পরিমাণে আয় করেছে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এই ব‍্যাঙ্কগুলি।

যেমন, ২০১৮ সালের ১ এপ্রিল থেকে ২০২০ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাত্র দু'বছরের মধ্যে এসএমএস সার্ভিস পরিষেবা থেকে ১০৭.৭ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে ব‍্যাঙ্ক অফ বরোদা। এবং এই একই সময়ের মধ্যে এসএমএস পরিষেবা থেকে ইন্ডিয়ান ব‍্যাঙ্ক সংগ্রহ করেছে ২১ কোটি টাকা।

আরটিআই অ‍্যাক্টিভিস্ট সুজিত স্বামী জানিয়েছেন, "২০১৪ সাল থেকে ২০২০ পর্যন্ত এই দুটি জাতীয় ব‍্যাঙ্কের এনপিএ'র পরিমাণ জানার জন্য আরটিআই করেছিলাম আমি। পাঞ্জাব ন‍্যাশানাল ব‍্যাঙ্ক ও স্টেট ব‍্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার এনপিএ'র পরিমাণও আমি জানতে চেয়েছিলাম, কিন্তু সেই তথ্য এখনও প্রকাশ করা হয়নি।"

 


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন