দিল্লিতে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়াদের ওপর হামলার ঘটনায় সরব সমস্ত মহল। রাজনৈতিক নেতা থেকে শুরু করে সমাজকর্মী, অভিনেতা এই বর্বরোচিত ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন প্রত‍্যেকেই।

সিপিআইএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি নিজের ট‍্যুইটারে আক্রান্ত ছাত্র সংসদের সভাপতি ঐশী ঘোষের একটি ভিডিও পোস্ট করে লেখেন, "আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীরা যখন কাছাকাছি ছিল তখনই মুখোশধারী কয়েকজন ব‍্যক্তি জেএনইউ বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকে হামলা চালায়। এই ভিডিও দেখাচ্ছে আরএসএস/বিজেপি আসলে ভারতকে কিসে রূপান্তর করতে চায়। তাদের কোনোমতেই সফল হতে দেওয়া যাবে না।"

 

 

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল ট‍্যুইট করে জানান, "জেএনইউ-তে কিভাবে এই হামলা করা হয়েছে তা জেনে আমি খুব অবাক। শিক্ষার্থীদের ওপর নৃশংসভাবে হামলা চালানো হয়েছে। পুলিশের শীঘ্রই এই আক্রমণের ঘটনা বন্ধ করে এলাকায় শান্তি প্রতিষ্ঠা করা উচিত। আমাদের ছাত্রছাত্রীরা ক‍্যাম্পাসের মধ্যে নিরাপদ না থাকলে কীভাবে দেশের উন্নতি হবে?"

 

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী এই ঘটনার নিন্দা করে টুইটারে লেখেন, "যে ফ‍্যাসিবাদী শক্তি আমাদের দেশকে নিয়ন্ত্রণ করছে তারা আমাদের দেশের সাহসী শিক্ষার্থীদের কন্ঠস্বরকে ভয় পায়। জেএনইউ-তে আজকের এই বর্বর আক্রমণ সেই ঘটনার প্রতিচ্ছবি।"

 

রাজনীতিবিদদের পাশাপাশি এই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন সমাজকর্মী কবিতা কৃষ্ণন, শেহলা রশিদ, অভিনেতা মহম্মদ জিশান আয়ুব প্রমুখ বিশিষ্ট ব‍্যক্তিরা।

 এই ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে সিপি আই(এম) পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম বলেন - আমি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকে বলতে চাই - আমরা দেখবো, আপনিও দেখবেন।

সিপি আই(এম) রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র এই ঘটনার নিন্দা করে তাঁর ট্যুইট বার্তায় বলেন - JNU ছাত্র সংসদের সভাপতি ঐশী ঘোষের মাথায় গভীর ক্ষত।পুলিশী সহায়তা নিয়ে মুখোশধারী সংঘ শাবকদের কাপুরুষোচিত আক্রমণ। পাশের ছবি তে সুচরিতা সেন,JNU র অধ্যাপিকা ছাড় পাননি এদের হাত থেকে। কাল/পরশুর মধ্যে, রাজ্য জুড়ে,সব অংশের মানুষকে নিয়ে, প্রয়োজনে ঝান্ডা ছেড়ে,ব্যাপকতম প্রতিবাদ হোক।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন