অযোধ্যা জমি মামলার রায় ঘোষণা নিয়ে দেশজুড়ে জারি হয়েছে চরম সতর্কতা। আজ শনিবার সকাল সাড়ে দশটায় এই রায় ঘোষণা করবে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারকের সাংবিধানিক বেঞ্চ। এর আগে ৪০ দিন ধরে এই মামলার শুনানি চলে।  এই সাংবিধানিক বেঞ্চে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ছাড়াও আছেন বিচারপতি এসএ বোবদে, বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়, বিচারপতি অশোক ভূষণ এবং বিচারপতি আব্দুল নাজির।

অযোধ্যা জমি মামলার রায় ঘোষণার দিন সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে উত্তরপ্রদেশ, দিল্লী, মধ্যপ্রদেশ, জম্মু এবং কর্ণাটকের সমস্ত স্কুল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উত্তরপ্রদেশে সমস্ত স্কুল ও কলেজ সোমবারও বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে উত্তরপ্রদেশ প্রশাসন।

উত্তরপ্রদেশ সরকারের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে – সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার জন্য উত্তরপ্রদেশ প্রশাসন সচেষ্ট। যে কোনো ঘটনায় দ্রুত ব্যবস্থা নেবার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। রাজ্যে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য ১২০০০ অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। প্রায় ৪০০০ আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

এর আগে ২০১০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্ট বিবাদে ঘেরা জমি তিন ভাগে ভাগ করার নির্দেশ দিয়েছিলো। সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, নির্মোহী আখড়া এবং রাম লালার মধ্যে করা সেই জমির ভাগের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ১৪টি আপিল জমা পড়ে শীর্ষ আদালতে।

রাম জন্মভূমি বাবরি মসজিদ জমি বিবাদ মূলত ২.৭৭ একর জমিকে কেন্দ্র করে। দক্ষিণপন্থী কিছু সংগঠনের বিশ্বাস ওখানেই রাম জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং সেখানে ষোড়শ শতাব্দীতে মুঘল সম্রাট বাবর মসজিদ তৈরি করেন। যে ঘটনা ক্রম্রশ বিবাদের আকার নেয় এবং ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ ভেঙে ফেলে কিছু হিন্দুত্ববাদী সংগঠন। যার জেরে দেশজুড়ে দাঙ্গায় কমপক্ষে ২০০০ মানুষ নিহত হন।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন