ভোট হয়েছিলো ১৮ ফেব্রুয়ারি। ফলাফল বেরিয়েছিলো ৩ মার্চ। সেই নির্বাচনে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন ইন্ডিয়ান পিপলস ফ্রন্ট অফ ত্রিপুরা (আইপিএফটি)-র সঙ্গে জোট বেঁধে লড়াই করেছিলো বিজেপি। আর ক্ষমতায় আসার মাত্র দুমাসের মধ্যেই পৃথক রাজ্যের দাবীতে প্রবল সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লো দুই জোটসঙ্গী। যে সংঘর্ষের জেরে সমাধানসূত্র খুঁজে বের করতে বিচ্ছিন্নতাবাদী জোটসঙ্গী আইপিএফটি–র সঙ্গে জরুরি বৈঠক করতে বাধ্য হলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব।

 সূত্রের খবর অনুসারে গত সোমবার ত্রিপুরার ধলাই জেলার চাইলেংতা বাজার চৌমহনীতে পৃথক রাজ্যের দাবীতে এক মিছিলের ডাক দেয় আইপিএফটি। এই মিছিল চলাকালীন বিজেপির সমর্থকদের সঙ্গে আইপিএফটি সদস্যদের সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এই ঘটনায় ২০ জনের আহত হবার খবর পাওয়া গেছে। আহতদের স্থানীয় চাইলেংতা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় একজনকে আগরতলার জি বি পন্থ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সূত্রের খবর অনুসারে এই সংঘর্ষ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে অন্যান্য এলাকায়। ত্রিপুরায় বিজেপি – আইপিএফটি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় দুই দলের বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ চলছে। যদিও এই নিয়ে চারবার এই দুই দল বড়সড় সংঘর্ষে জড়ালো।

এই ঘটনার পরেই মঙ্গলবার রাতে দুই দলের শীর্ষ নেতৃত্বের বৈঠক ডাকেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। ওই বৈঠক থেকে পাঁচ জনের এক সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটির শীর্ষে আছেন উপ মুখ্যমন্ত্রী জিষ্ণু দেব বর্মা। এই কমিটিতে আরও আছেন বিজেপির প্রতিমা ভৌমিক এবং রাজীব ভট্টাচার্য এবং আই পি এফ টি-র এন সি দেববর্মা এবং মেভার কুমার জামাতিয়া। আগামী সপ্তাহে দুই দলের স্থানীয় নেতৃত্বের সঙ্গে এই কমিটির বৈঠকে বসার কথা।

ত্রিপুরা বিধানসভায় বিজেপির ৩৬ জন এবং আই পি এফ টি-র ৮ জন সদস্য আছেন। প্রসঙ্গত, গত মাসেই আই পি এফ টি-র সহ সভাপতি অনন্ত দেব বর্মা জানিয়েছিলেন কোনও অবস্থাতেই পৃথক রাজ্য তুইপ্রাল্যান্ডের দাবি থেকে সরে আসা হবেনা।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন