গুরুতর সংকট কংগ্রেসের অভ্যন্তরে। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে হতাশাব্যঞ্জক ফলাফলের পর দলীয় সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্তে অনড় রাহুল গান্ধী বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছেন কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতৃত্ব। এর আগে জানা গেছিলো আগামী দিন চারেকের মধ্যে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি ফের বৈঠকে বসে দলীয় নেতৃত্বের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। যদিও সূত্রের খবর অনুসারে, মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টেয় কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী নিজের বাসভবনে ফের এক বৈঠক ডেকেছেন।

এদিনই সকালে রাহুল গান্ধীর সঙ্গে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভদ্র, শচীন পাইলট, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট দেখা করেন। সেই বৈঠকেও কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী নিজের পদত্যাগের সিদ্ধান্তে অনড় আছেন বলেই জানা গেছে। এরপরই আজ বিকেলে ফের বৈঠক ডাকা হয়েছে।

আসামের কংগ্রেস নেতা তরুণ গগৈ জানিয়েছেন, তিনি রাহুল গান্ধীকে পদে থাকবার অনুরোধ জানালেও রাহুল গান্ধী নিজের পদত্যাগের সিদ্ধান্তে অনড় আছেন।

সূত্রের খবর অনুসারে, দলের বেশ কিছু বর্ষীয়ান নেতার ভূমিকায় ক্ষুব্ধ রাহুল গান্ধী। বিশেষত রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট এবারের নির্বাচনে দলীয় প্রচারের থেকে নিজের ছেলের কেন্দ্রে প্রচারে বেশি সময় দিয়েছেন। এবারের নির্বাচনে রাজস্থানে কংগ্রেসের ভরাডুবির কারণ হিসেবে অনেকেই সেই ঘটনা সামনে এনেছেন।

একই ভাবে দেশের ১৮ রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে খাতা খুলতে পারেনি কংগ্রেস। ৫৪৩ আসন বিশিষ্ট লোকসভায় কংগ্রেসের প্রাপ্ত আসন সংখ্যা ৫২। যে আসন সংখ্যায় বিরোধী দলনেতার পদ পাওয়াও সম্ভব নয়। কারণ ন্যূনতম ৫৫ আসন না পেলে বিরোধী দলনেতার পদ পাওয়া যায় না। একই সঙ্গে খোদ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী আমেঠি কেন্দ্র থেকে বিজেপির কাছে পরাজিত হয়েছেন। যদিও কেরলের ওয়াইনাড কেন্দ্র থেকে তিনি জয়ী হয়েছেন।

(ফাইল ছবি)


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন