সম্প্রতি একটি টেলিভিশন চ্যানেলে বালাকোট এয়ার স্ট্রাইক প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর করা মন্তব্যের প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশনের কাছে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়ে চিঠি লিখলেন সিপিআইএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি।

গত শনিবার নিউজ নেশন চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বালাকোট এয়ার স্ট্রাইকে মেঘের অসাধারণ ভূমিকা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, "ওই দিন খুব বৃষ্টি হচ্ছিল।...আকাশে মেঘ র‍্যাডার থেকে বিমানকে লুকিয়ে থাকতে সাহায্য করবে ভেবে খারাপ আবহাওয়াতেও এয়ার স্ট্রাইকের অনুমতি দিয়েছিলাম আমি।" সেনাপ্রধানদের বারণ সত্ত্বেও ওই দিনই তিনি এয়ার স্ট্রাইক করেছিলেন বলে সাক্ষাৎকারে স্বীকার করেছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে আদর্শ আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছেন সীতারাম ইয়েচুরি। বাম নেতার অভিযোগ, লোকসভা নির্বাচন চলাকালীন বালাকোট এয়ার স্ট্রাইকের মতো অনুভূতিপ্রবণ মিলিটারি মিশনের  বিস্তারিত ব‍্যাখ‍্যা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আসলে আদর্শ আচরণবিধি লঙ্ঘন করছেন। ভোট টানতে কোনো রাজনৈতিক দল নিজেদের প্রচারে সেনাবাহিনীর প্রসঙ্গ তুলতে পারবেনা, নির্বাচন কমিশনের এই নির্দেশ সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রী বারবার তাঁর সভাতে সেনাবাহিনীর প্রসঙ্গ তুলছেন বলে চিঠিতে জানিয়েছেন তিনি।

 

চিঠিতে সিপিআইএম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধেও ক্ষোভ প্রকাশ করে লেখেন, "নির্বাচন কমিশন মনে করে নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহ, দু'জনেই নির্বাচন পদ্ধতির নিয়মের বাইরে। আদর্শ আচরণবিধি এনাদের জন্য নয়।" প্রধানমন্ত্রীর এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশনকে দ্রুত ব‍্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন সীতারাম ইয়েচুরি।

 

এর আগে নিজের টুইটার হ‍্যান্ডেলে প্রধানমন্ত্রীর এই মন্তব্যের  প্রতিবাদ জানিয়ে সীতারাম ইয়েচুরি লেখেন, "জাতীয় সুরক্ষা কোনো হেলাফেলা করার বিষয় নয়। প্রধানমন্ত্রীর এরকম দায়িত্বহীন মন্তব্য দেশের পক্ষে খুব ক্ষতিকর। নরেন্দ্র মোদীর মতো কোনো ব‍্যক্তির প্রধানমন্ত্রী থাকাই উচিত নয়।"

প্রধানমন্ত্রীর এই মন্তব্য বিজেপি ও গুজরাট বিজেপির টুইটার অ্যাকাউন্টে শেয়ার করা হয়। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনদের প্রবল বিদ্রূপের মুখে পড়ে কিছুক্ষণের মধ্যেই টুইটটি মুছে দেওয়া হয়। কিন্তু ততক্ষণে টুইটের স্ক্রিনশট ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

(সীতারাম ইয়েচুরীর অফিসিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে সংগৃহীত)


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন