কেন্দ্রীয় তথ্য কমিশন (CIC)-এর নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ ভ্রমণের সময় তাঁর সঙ্গীদের সম্পর্কে কোনো তথ‍্য প্রকাশ করলো না বিদেশ মন্ত্রক। ২০১৪-১৫ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী যে কটি বিদেশ ভ্রমণ করেছেন তাতে সরকারি ও বেসরকারি ভাবে যে ক'জন প্রধানমন্ত্রীর সাথে ছিলেন তাঁদের নামের তালিকা চেয়ে বিদেশ মন্ত্রকের কাছে RTI করেছিল একটি সর্বভারতীয় ইংরেজি ওয়েব পোর্টাল। কিন্তু RTI-এর উত্তরে বিদেশ মন্ত্রক কেবল সংবাদ সংস্থার ব‍্যক্তিদের নাম জানিয়েছে।

বিদেশ মন্ত্রকের পাবলিক ইনফরমেশন অফিসার মায়াঙ্ক সিং RTI-এর উত্তরে জানিয়েছেন, "যেই প্রশ্নের উত্তর চাওয়া হয়েছে তা অত‍্যন্ত সংবেদনশীল। যদি সমস্ত তথ্য প্রকাশ করা হয় তাহলে নিরাপত্তা, অর্থনৈতিক ব্যবস্থা, বৈজ্ঞানিক দিক থেকে ভারতের সার্বভৌমত্বের ওপর প্রভাব পড়তে পারে। এর কারণে একজন ব‍্যক্তির জীবনের ঝুঁকি থাকতে পারে। ২০০৫ সালের RTI আইনের ৮(১), (a) এবং (c) ধারা অনুযায়ী এই তথ্য প্রকাশ করা যাবে না।"

এর আগে ২০১৭ সালের ৬ই অক্টোবর করবী দাস নামে ওড়িশার এক বাসিন্দা ২০১৫-১৬ ও ২০১৬-১৭ সালে প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ ভ্রমণের খরচ ও ভ্রমণের সঙ্গীদের তথ‍্য জানতে চেয়েছিল বিদেশ মন্ত্রকের কাছে। কোনো সন্তোষজনক উত্তর না পাওয়ায় তিনি CIC-র কাছে এই তথ্য জানতে চান। CIC কমিশনার আর কে মাথুর নির্দেশ দেন নিরাপত্তার আশঙ্কা ব‍্যতীত প্রধানমন্ত্রীর সাথে যাঁরা যাঁরা ভ্রমণ করেছিলেন তাঁদের সমস্ত তথ‍্য প্রকাশ করতে হবে। CIC-র নির্দেশের পরেও করবী দাসকে নিরাপত্তা সংস্থার ব‍্যক্তিদের তথ‍্য ছাড়া আর কোনো তথ্য দেওয়া হয়নি।

RTI-এর সঠিক উত্তর জানার জন্য ওয়েব পোর্টালের পক্ষ থেকে বিদেশ মন্ত্রকের অফিসে ফোন ও ই-মেইল করা হয়। কিন্তু কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি। CIC-র নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও বিদেশ মন্ত্রকের এই গোপনীয়তায় স্বাভাবিকভাবেই মোদী সরকারের স্বচ্ছ ও দুর্নীতি-মুক্ত পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

(ফাইল ছবি)


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন