কেরলের ভয়াবহ বন্যা মিলিয়ে দিয়েছে আপামর ভারতবাসীকে। বহু মানুষ তাঁর শেষ সম্বলটুকু উজাড় করে দিয়ে কেরলের পাশে দাঁড়িয়েছে। কেরলের ২১ বছর বয়সী কলেজ ছাত্রী হানান, যে কিছু দিন আগে পড়ার খরচ জোগাড় করতে না পারায় মাছ বিক্রি করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভয়ঙ্কর ট্রোলড হয়েছিল, সেই হানান বন্যা পীড়িতদের জন্য দেড় লক্ষ টাকা মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করলো।

পড়াশুনার খরচ জোগাড় করতে না পারার কথা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পেরে বহু সহৃদয় ব্যক্তি হানানকে অর্থ সাহায্য করেছিল, সেই টাকা মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করলো হানান। শুধু তাই নয় একটি সম্মেলনের আয়োজন করে উদ্ধারকার্যে টাকা দান করার জন্য আরও বহু মানুষকে অনুরোধ জানিয়েছে হানান। B.Sc ছাত্রী হানানের বাড়ী কেরলের ইদুক্কি জেলায়। বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে এই জেলাতেই।

হানানের কথায়, "আমি এই টাকাগুলো অনেকের কাছ থেকে পেয়েছি। বন্যা কবলিত মানুষদের ওই টাকা দিতে পেরে আমি খুব খুশি।"

হানানের এই খবরও সোশ্যাল মিডিয়ায় মুহূর্তের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। যদিও কিছু লোকের দাবি, এটা "ভুয়ো খবর"।

আর এক সরকারি কর্মচারী, সাজেশ, তাঁর সমস্ত বেতন বন্যাত্রাণে দান করেছে। নিপা ভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা করতে গিয়ে মৃত্যু হওয়া নার্সের স্বামী এই সাজেশ।

কান্নুর জেলার ৬৮ বছর বয়স্কা এক বৃদ্ধা তাঁর শেষ সম্বল পেনসনের টাকা সহ মোট ১০০০ টাকা দান করেছে মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে।

এছাড়াও বহু সোশ্যাল মিডিয়া গ্রুপ, NGO, ছাত্রছাত্রী, অভিনেতা-অভিনেত্রী, রাজনৈতিক নেতা, প্রতিবেশী রাজ্য সবাই নিজের নিজের সাধ্যমতো সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে কেরলের জন্য। তবে বৃষ্টি বন্ধ না হওয়ায় কেরলের পরিস্থিতি আরও জটিল হচ্ছে।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন