করোনা আক্রান্ত হলেন সিপিআইএম নেতা ও গরিবের চিকিৎসক ডাঃ ফুয়াদ হালিম। চারবার করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় পর পঞ্চমবারের বেলায় রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে তাঁর। গতকাল চিকিৎসকের স্ত্রী সাইরা শাহ হালিম ট‍্যুইট করে একথা জানিয়েছেন। এদিনই রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে বর্ষীয়ান সিপিআই(এম) নেতা ও রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শ্যামল চক্রবর্তীর।

বেশ কিছুদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন ডাঃ ফুয়াদ হালিম। ২৭ জুলাই কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি। চিকিৎসাতে ধীরে ধীরে সাড়া দিচ্ছেন বলেও গতকাল জানিয়েছেন তাঁর স্ত্রী। এর কয়েক ঘণ্টা পরে ট‍্যুইটারে তিনি জানান করোনা ফুয়াদ হালিমের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে।

 

ট‍্যুইটারে সাইরা হালিম লেখেন, "চারবারের করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর, পঞ্চমবারের বেলায় করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে ডাঃ ফুয়াদ হালিমের। ওনার চিকিৎসা চলছে। অনুগ্রহ করে সবাই ওনার জন্য প্রার্থনা করুন।"

এর কয়েক ঘণ্টা আগে ট‍্যুইটারে তিনি লেখেন, "প্রত‍্যেকের শুভ কামনায় ফুয়াদ হালিম ধীরে ধীরে চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন। ওনার সুস্থ হতে সময় লাগবে। উনি একজন যোদ্ধা এবং উনি এর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাবেন। শুভ কামনা, প্রার্থনার জন্য আপনাদের সবাইকে ধন্যবাদ।"

লকডাউনের সময় যখন মানুষ চিকিৎসার জন্য হা-পিত্যেশ করছিলেন সেইসময় মাত্র ৫০ টাকায় ডায়ালাইসিস করেছেন ডাঃ ফুয়াদ হালিমের সংস্থা কলকাতা স্বাস্থ্য সংকল্প (কেএসএস)। গত ৩০ জুন পর্যন্ত প্রায় আড়াই হাজার গরীব মানুষদের ডায়ালাইসিস করেছেন তিনি। তাঁর এই উদ্যোগ বহু প্রশংসা কুড়িয়েছে। লকডাউনের আগেও মাত্র ৩৫০ টাকায় ডায়ালাইসিস করতো তাঁর এই সংস্থা।

রাজ্য বিধানসভার সর্বাধিক সময়ের প্রাক্তন অধ্যক্ষ প্রয়াত হাসিম আব্দুল হালিমের পুত্র ডাঃ ফুয়াদ হালিম নিজেও সিপিআই(এম) সদস্য এবং ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে সিপিআই(এম) প্রার্থী হিসেবে ডায়মন্ডহারবার লোকসভা কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।

করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে অপর এক বর্ষীয়ান সিআইটিইউ নেতা তথা রাজ্যের প্রাক্তন পরিবহণ মন্ত্রী শ‍্যামল চক্রবর্তীরও। গতকাল তাঁকে পিয়ারলেস হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। তাঁর পারিবারিক সূত্রে একথা জানা গেছে।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন