গৃহীত হচ্ছে না প্রদেশ সভাপতি সোমেন মিত্রের পদত্যাগপত্র। এ আই সি সি সূত্রে জানা গেছে সোমেন মিত্রের পদত্যাগ পত্র গৃহীত হবেনা। সোমবার দিল্লিতে এআইসিসি পর্যবেক্ষক গৌরব গগৈ-এর সঙ্গে সোমেন মিত্রের সাক্ষাৎ হয়। সেখানেই গৌরব গগৈ সোমেন মিত্রকে একথা জানান।

প্রদেশ কংগ্রেসের জনসংযোগের দায়িত্বে থাকা অমিতাভ চক্রবর্তী মঙ্গলবার একথা জানিয়েছেন। তিনি আরও জানিয়েছেন, গৌরব গগৈ সোমেন মিত্রকে জানিয়েছেন, আগামী ১৯ জুলাই জেলা কংগ্রেস সভাপতিদের ডাকা সভা থেকে রাজ্য কংগ্রেসের পরবর্তী কর্মসূচীর রোড ম্যাপ তৈরি করা হবে। ওই বৈঠকে এআইসিসি প্রতিনিধিও উপস্থিত থাকবেন। গৌরব গগৈ সোমেন মিত্রকে নতুন উদ্যমে কাজ চালিয়ে যেতে বলেছেন বলেও জানিয়েছেন অমিতাভ চক্রবর্তী। তিনি আরও জানান, জাতীয় স্তরে নতুন কংগ্রেস সভাপতি ঘোষণা হওয়ার পরে, তিনিই স্থির করবেন কোন রাজ্যে কে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি থাকবেন।

প্রসঙ্গত, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শ্রী সোমেন মিত্র গত ২৪শে মে লোকসভা নির্বাচনে বিপর্যয়ের সমস্ত দায়িত্ব নিজের কাধে নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করেছিলেন। যদিও লোকসভা নির্বাচনের পাঁচ মাস আগে তিনি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি মনোনীত হয়েছিলেন তথাপি সেদিনই তিনি পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন। সহ কর্মীদের অনুরোধে তিনি প্রদেশ সভাপতির কাজ চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর পদত্যাগ কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি গ্রহণ না করায়, তিনি  আশা করেছিলেন  যে রাহুল গান্ধীই সভাপতি থাকবেন। কিন্তু রাহুল গান্ধীর অনড় মনোভাবের পরে তাঁর বক্তব্য, রাহুল গান্ধীই তাঁকে সভাপতির দায়িত্ব দেন। যখন তিনিই কংগ্রেস সভাপতি থাকবেন না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তখন আমারও প্রদেশ সভাপতির দায়িত্ব আঁকড়ে থাকার কোন মানে হয় না।

গত পরশু তিনি তাঁর  পদত্যাগ পত্র পাঠিয়ে দেন। এর আগেও ১৯৯৮ সালে, বাংলায় লোকসভা নির্বাচনে ভরাডুবির দায়িত্ব নিজের কাঁধে নিয়ে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির পদ ছেড়ে দিয়েছিলেন। তাঁর আরও বক্তব্য যে রাহুল গান্ধীর পদত্যাগ অত্যন্ত দূর্ভাগ্যজনক, দলকে অতি শীঘ্র একটি সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন।


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন