জর্জ ফ্লয়েডের হত্যা এবং বিশ্বব্যাপী বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভের আঁচ আগেই ধাক্কা মেরেছিলো লন্ডনে। এবার ব্রিস্টল থেকে বিক্ষোভকারীদের চাপে সরিয়ে দেওয়া হল এডওয়ার্ড কোলস্টোন-এর মূর্তি। যিনি অষ্টাদশ শতাব্দীতে ক্রীতদাস ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। সরানো হয়েছে রবার্ট মিলিগানের মূর্তিও। গত রবিবার এই ঘটনা ঘটেছে।

লন্ডনের মেয়র মঙ্গলবার জানিয়েছেন – শহরের ঐতিহ্যের সঙ্গে মানানসই নয় এইধরনের মূর্তি, রাস্তার নাম, ম্যুরাল বদলের বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করছে প্রশাসন। এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবার জন্য একটি কমিশন গঠনের কথা জানিয়েছেন মেয়র সাদিক খান।

তিনি আরও জানিয়েছেন, আমাদের পক্ষে খুবই অস্বস্তিকর সত্য এটাই যে, আমাদের দেশ এবং শহর তার সম্পদের একটা বড় অংশ দাস ব্যবসা থেকে অর্জিত, যা আমাদের এখানে প্রতিফলিত হয়েছে এবং অবদান আছে এরকম অনেক সম্প্রদায়কে ইচ্ছাকৃতভাবে উপেক্ষা করা হয়েছে।

এর আগে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়কে দক্ষিণ আফ্রিকার সাম্রাজ্যবাদী সিসিল রোডসের মূর্তি সরিয়ে নিতে বলা হয়েছিলো। মঙ্গলবার এই মূর্তি সরানোর দাবীতে ফের বহু মানুষ ওই এলাকায় জড়ো হন। উল্লেখ্য ২০১৫ সালে কেপ টাউনে দক্ষিণ আফ্রিকা ইউনিভার্সিটি থেকেও ১৯৩৪ সালে স্থাপিত সিসিল রোডসের মূর্তি সরিয়ে নেওয়া হয়। ২০০৩ সাল থেকে রোডসের নামে যে স্কলারশিপ চলতো তা বদল করে ম্যান্ডেলা রোডস স্কলারশিপ করা হয়েছিলো।

একইভাবে গত সপ্তাহের শেষে বিক্ষোভকারীরা বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ তুলে উইন্সটন চার্চিলের মূর্তি সরিয়ে নেবার দাবি জানিয়েছে।

গতকাল জর্জ ফ্লয়েডের শেষকৃত্যে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য লন্ডন, প্যারিস সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মানুষ জমায়েত হয়ে বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভ দেখান। 

 


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন