প্রতিদিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে ভারতে। প্রতিদিনের রেকর্ড ভাঙছে প্রতিদিন। এরই মাঝে আরো আশঙ্কার কথা শোনালো সরকারের নির্দিষ্ট করা এক বিশেষজ্ঞ কমিটি। কমিটি জানিয়েছে, আসন্ন উৎসবের মরসুমে সামান্য অসতর্ক হলেই এক মাসে ২৬ লক্ষ সংক্রমণ হতে পারে দেশে।

কমিটি জানিয়েছে, করোনা সংক্রমনের নিরিখে ভারত এখন এক কঠিন সময়ের মধ্যে দাঁড়িয়ে আছে। যদি সমস্ত নিয়মকানুন মেনে চলে তাহলে নতুন বছরের শুরুতে কিছুটা হলেও লাগাম টানা যাবে এই সংক্রমণে। কিন্তু বর্তমানে ভারত জুড়ে চলছে উৎসবের সমারোহ। একের পর এক উৎসবে মাতছে  ভারতবাসী। এক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে সাবধানতা বাণী শোনানো হয়েছে। শীতের শুরু ও উৎসবের আমেজ সংক্রমণকে আরো বাড়িয়ে দিতে পারে। সামান্য অসতর্কতা সংক্রমণের পরিমাণকে অনেক গুণ বাড়িয়ে দিতে পারে। সামান্য অসতর্ক হলেই এক মাসে ২৬ লক্ষ সংক্রমণ হতে পারে। দেশের মোট জনসংখ্যার মধ্যে ৩০ শতাংশের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে উঠেছে।

কমিটির এক সদস্য বলেছেন, সমস্ত বিধিনিষেধ মেনে চললে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারির শেষে অতিমারিকে নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে। তখন সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা থাকবে খুব সামান্য। বর্তমানে দেশে মোট করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৭৫ লক্ষ। কমিটির মতে, ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশে মোট সংক্রমিতের সংখ্যা হতে পারে ১ কোটি ১৪ লক্ষ।

 দেশজুড়ে সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তের জন্য যে উৎসবকে দায়ি করা হচ্ছে, তাতে উদাহরণ স্বরূপ টেনে আনা হয়েছে কেরলের ওনাম উৎসবের কথা। ২২ আগস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর কেরলে পালন হয়েছে ওনাম উৎসব। ৮ সেপ্টেম্বর থেকে কেরলের সংক্রমণ উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেয়েছে। এই ক'দিনে ৩২ শতাংশ সংক্রমণ বেড়েছে কেরলে। তাই সরকারের পক্ষ থেকে উৎসবের সময় অনেক বেশি সতর্ক থাকার কথা বলা হচ্ছে বারবার।

জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন