লকডাউনের কারণে ভিনরাজ্যে আটকে রয়েছেন অজস্র পরিযায়ী শ্রমিক। এই পরিস্থিতিতে পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফেরানোর জন্য অত্যন্ত তৎপর হওয়া প্রয়োজন রাজ্য সরকারের। স্বাস্থ্যবিধি মেনে, নির্দিষ্ট পরীক্ষা এবং চেকাপের মধ্যে দিয়ে উপযুক্ত নিরাপত্তায় তাঁদের ঘরে ফেরানোর উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের৷ সরকারের পক্ষ থেকে সেই উদ্যোগে ঘাটতির অভিযোগ তুলে ইতিমধ্যেই বামেদের তরফ থেকে শুরু হয়েছে ‘ঘরে ফেরাও’ কর্মসূচি। এবার এই উদ্যোগের সুরে সুর মিলিয়ে তুলি, আঙুলে প্রতিবাদে শামিল হলো একদল তরুণ শিল্পী।

সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে শিল্পীদের এই অভিনব প্রতিবাদ ইতিমধ্যেই ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা অবশ্যই অন্য মাত্রা যোগ করেছে ‘ঘরে ফেরাও’ কর্মসূচিতে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই প্রতিবাদে অংশগ্রহণকারী শিল্পীদের বক্তব্য অনুসারে - যেহেতু এখন লকডাউন চলছে তাই শিল্পীরা পথে নেমে প্রতিবাদ করতে পারছেন না,কিন্তু সামাজিক কিছু দায় থাকে শিল্পীর,তাই সোশ্যাল মিডিয়াতেই অভিনব কায়দায় প্রতিবাদ ও আন্দোলন।

এই আন্দোলনে যোগ দেবার পদ্ধতি হলো - একজন শিল্পী পরিযায়ী শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনার পক্ষে একটি পোস্টার আঁকছেন এবং সেই পোষ্টারের সাথে তিনি মেনশন করছেন আরও কয়েকজন শিল্পীকে, এইভাবে নমিনেট হওয়া শিল্পীরা ফের পোস্টার বানিয়ে অন্যদের নমিনেট করছেন। গত দুদিন ধরে চলা এই উদ্যোগ ইতিমধ্যেই সাড়া ফেলেছে। শিল্পীরা এই বিষয়টিকে আরও ছড়িয়ে দিতে চাইছেন সাধারণের মধ্যে।

এখনও পর্যন্ত এই পর্যায়ে ছবি এঁকেছেন শান্তনু দে, সব্যসাচী বোস, সৃজনী গোস্বামী, তৌসিফ হক, আশিক আলম, সৌরিন দাস, পীতম চট্টোপাধ্যায়, অরিন্দম ঘোষ, সৌরভ মিত্র, পৌলমী সাহা, পারিজাত ব্যানার্জি, অনির্বাণ চক্রবর্তী ও ঈশ্বর কর্মকার।

উল্লেখ্য রাজ্যে বামেদের পক্ষ থেকে অভিবাসী শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে "ঘরে ফেরাও (Bring Us Home)' নামে একটি ফর্ম তৈরি করা হয়েছে। এই ফর্ম বিভিন্ন রাজ্যে আটকে থাকা এই রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের কাছে পৌঁছে দেবার আবেদন জানানো হয়েছে। এরপর ওই লিঙ্কে নথিভুক্ত নাম সহ বামেদের পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে যাওয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে। বামেদের পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়েছে - আমাদের পরিজন কে আমাদেরই দায়িত্ব নিয়ে রাজ্যে ফেরাতেই হবে।

 


জনপ্রিয় খবর

  • এই সপ্তাহের এর

  • এই মাস এর

  • সর্বকালীন